Home / Bangladesh / রাজধানীর কাকরাইলের মা ও ছেলেকে নির্মমভাবে খুন!

রাজধানীর কাকরাইলের মা ও ছেলেকে নির্মমভাবে খুন!

রাজধানীর কাকরাইলের একটি বাড়িতে মা ও ছেলে নির্মমভাবে খুন হয়েছেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর রাজমনি ঈশা খাঁ হোটেলের বিপরীত দিকের বাড়ির নিজ ফ্ল্যাটে খুন হন তাঁরা। নিজ ফ্ল্যাটের সামনে সিড়িতে ছেলে ও ঘরের ভেতর মায়ের লাশ পড়ে ছিল। ওই বাড়ির দারোয়ান পুলিশকে খবর দিলে গত রাত সাতটার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরে লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন ওই বাসার গৃহকর্তা আবদুল করিমের স্ত্রী শামসুন্নাহার করিম (৪৩) ও তার ছেলে শাওন (১৮)। শাওনের বাবা আব্দুল করিম ওই ভবনের মালিক এবং তিনি ব্যবসা করেন। কাকরাইলের রাজমণি-ইশা খাঁ হোটেলের বিপরীত পাশে তলা গলির ৭৯/১, মায়াকানন নামের বাসার ৬ তলা একটি ভবনের ৫ তলায় থাকতেন তাঁরা। বাড়ির মালিক ও গৃহকর্তা আবদুল করিম তখন বাসার বাইরে ছিলেন। নিহতদের মধ্যে মা গৃহিণী। পুলিশ বলছে লাশ উদ্ধারের সময় তারা দেখেছেন মায়ের গলাকাটা ছিল আর ছেলের শরীর ছিল রক্তাক্ত। বাসার কাজের মহিলা গৃহকর্মী রাশিদা বেগম (৪৮) বলেন, সন্ধ্যায় তিনি ওই ফ্ল্যাটে কাজের জন্য ঢোকেন। এ সময় শামসুন্নাহার দরজা খুলে দেন। ঘটনার সময় তিনি রান্না ঘরে ছিলেন। কেউ একজন এসে বাইরে থেকে রান্না ঘরের দরজা লাগিয়ে দেয়। এরপর তিনি ‘ম্যাডাম’ শামসুন্নাহারের বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার শুনতে পান। কাজের মেয়ে বলেন, বাসার দারোয়ান এসে রান্না ঘরের দরজা খুলে দিলে সে সেখান থেকে বের হন। বাসার দারোয়ান জানান, সিঁড়ি দিয়ে এক ব্যক্তি নিচে নামার সময় তাঁকে বলেছেন, গিয়ে দেখেন ৫ তলায় ঝামেলা হচ্ছে। তিনি ৫ তলায় গিয়ে দেখেন ফ্ল্যাটের সিড়ি ও ভেতরে দু জনের লাশ পড়ে আছে।

পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, ঘটনা সম্পর্কে জানতে বাসার দারোয়ান ও কাজের মেয়েকে থানায় নেয়া হয়েছে। রমনা থানার ওসি কাজী মাঈনুল বলেন, ওই বাসায় মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি ছয়তলা ফ্ল্যাটটির ৫মতলায় গৃহবধূ শামসুন্নাহারের জবাই করা মরদেহ পড়ে আছে। আর ১৮ বছর বয়সী এক তরুণের মরদেহ পড়ে আছে ফ্ল্যাটের ৪তলার সিঁড়িতে। তবে এ বিষয়ে এখনও বিস্তারিত জানা যায়নি। স্থানীয় লোকজন জানান, সন্ধ্যার পর ওই বাসার দারোয়ান নোমান বাইরে এসে চিৎকার করলে হত্যাকান্ডের বিষয়টি জানাজানি হয়। এদিকে হত্যাকান্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ,র‌্যাবসহ ও ডিবি সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ঘরের ভেতরে রক্তাক্ত অবস্থায় এক নারী পড়েছিলেন। আর সিঁড়িতে পড়ে ছিলেন ১৮-২০ বছর বয়সী এক তরুণ। আমরা জেনেছি তারা সম্পর্কে মা-ছেলে। কয়েকজনকে এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

Check Also

উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গত কাল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *