Home / 2017 / November / 02

Daily Archives: November 2, 2017

রাজধানীর কাকরাইলের মা ও ছেলেকে নির্মমভাবে খুন!

রাজধানীর কাকরাইলের একটি বাড়িতে মা ও ছেলে নির্মমভাবে খুন হয়েছেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর রাজমনি ঈশা খাঁ হোটেলের বিপরীত দিকের বাড়ির নিজ ফ্ল্যাটে খুন হন তাঁরা। নিজ ফ্ল্যাটের সামনে সিড়িতে ছেলে ও ঘরের ভেতর মায়ের লাশ পড়ে ছিল। ওই বাড়ির দারোয়ান পুলিশকে খবর দিলে গত রাত সাতটার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরে লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন ওই বাসার গৃহকর্তা আবদুল করিমের স্ত্রী শামসুন্নাহার করিম (৪৩) ও তার ছেলে শাওন (১৮)। শাওনের বাবা আব্দুল করিম ওই ভবনের মালিক এবং তিনি ব্যবসা করেন। কাকরাইলের রাজমণি-ইশা খাঁ হোটেলের বিপরীত পাশে তলা গলির ৭৯/১, মায়াকানন নামের বাসার ৬ তলা একটি ভবনের ৫ তলায় থাকতেন তাঁরা। বাড়ির মালিক ও গৃহকর্তা আবদুল করিম তখন বাসার বাইরে ছিলেন। নিহতদের মধ্যে মা গৃহিণী। পুলিশ বলছে লাশ উদ্ধারের সময় তারা দেখেছেন মায়ের গলাকাটা ছিল আর ছেলের শরীর ছিল রক্তাক্ত। বাসার কাজের মহিলা গৃহকর্মী রাশিদা বেগম (৪৮) বলেন, সন্ধ্যায় তিনি ওই ফ্ল্যাটে কাজের জন্য ঢোকেন। এ সময় শামসুন্নাহার দরজা খুলে দেন। ঘটনার সময় তিনি রান্না ঘরে ছিলেন। কেউ একজন এসে বাইরে থেকে রান্না ঘরের দরজা লাগিয়ে দেয়। এরপর তিনি ‘ম্যাডাম’ শামসুন্নাহারের বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার শুনতে পান। কাজের মেয়ে বলেন, বাসার দারোয়ান এসে রান্না ঘরের দরজা খুলে দিলে সে সেখান থেকে বের হন। বাসার দারোয়ান জানান, সিঁড়ি দিয়ে এক ব্যক্তি নিচে নামার সময় তাঁকে বলেছেন, গিয়ে দেখেন ৫ তলায় ঝামেলা হচ্ছে। তিনি ৫ তলায় গিয়ে দেখেন ফ্ল্যাটের সিড়ি ও ভেতরে দু জনের লাশ পড়ে আছে।

পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, ঘটনা সম্পর্কে জানতে বাসার দারোয়ান ও কাজের মেয়েকে থানায় নেয়া হয়েছে। রমনা থানার ওসি কাজী মাঈনুল বলেন, ওই বাসায় মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি ছয়তলা ফ্ল্যাটটির ৫মতলায় গৃহবধূ শামসুন্নাহারের জবাই করা মরদেহ পড়ে আছে। আর ১৮ বছর বয়সী এক তরুণের মরদেহ পড়ে আছে ফ্ল্যাটের ৪তলার সিঁড়িতে। তবে এ বিষয়ে এখনও বিস্তারিত জানা যায়নি। স্থানীয় লোকজন জানান, সন্ধ্যার পর ওই বাসার দারোয়ান নোমান বাইরে এসে চিৎকার করলে হত্যাকান্ডের বিষয়টি জানাজানি হয়। এদিকে হত্যাকান্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ,র‌্যাবসহ ও ডিবি সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ঘরের ভেতরে রক্তাক্ত অবস্থায় এক নারী পড়েছিলেন। আর সিঁড়িতে পড়ে ছিলেন ১৮-২০ বছর বয়সী এক তরুণ। আমরা জেনেছি তারা সম্পর্কে মা-ছেলে। কয়েকজনকে এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আর পাকিস্তানের সুর একই!

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আর পাকিস্তানের সুর একই। এ অবস্থায় তাকে রাজাকার-জঙ্গিদের সঙ্গে পাকিস্তানের ট্রেনে তুলে দিলেই দেশে টেকসই রাজনীতি হবে। আজ বুধবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুম বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ আয়োজিত ‘বর্তমান রাজনীতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

বিএনএফের কো-চেয়ারম্যান মমতাজ জাহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বিএনএফের প্রেসিডেন্ট মুক্তিযোদ্ধা এস এম আবুল কালাম আজাদ এমপি প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, এ মুহূর্তে তিনটি বিতর্ক জাতীয় রাজনীতিকে আলোড়িত করছে-নির্বাচন বিতর্ক, রাজাকার-জঙ্গি বিতর্ক এবং একবার মুক্তিযোদ্ধা, আরেকবার রাজাকারের সরকার খেলার বিতর্ক। শান্তি, অগ্রগতি ও উন্নয়নের জন্য এ তিন বিতর্কে স্থায়ী সমাধান দরকার।

তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়া এখনো নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র, জঙ্গি-রাজাকারদের রাজনৈতিক সঙ্গী রাখা এবং রাজাকারদের নিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার চক্রান্ত করেই চলেছেন, সামরিকতন্ত্রের পক্ষে সাফাই গাইছেন এ কারণেই গণতন্ত্র এখনও নিরাপদ নয়।

আওয়ামী লীগের দরজা বন্ধ হবে বিদ্রোহীদের জন্য।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আগামী নির্বাচনে প্রার্থিতার বিষয়ে বলেছেন, ‘’কে দাঁড়াল, এটা ব্যাপার নয়, নেত্রী যাকে দেবেন তাঁর সঙ্গে কাজ করতে হবে। বিদ্রোহীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। দল করলে দলের আদর্শ মানতে হবে, দলের নিয়ম মানতে হবে, দলের প্রার্থীকে মানতে হবে।‘’

রাজশাহীতে আজ বুধবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।  রাজশাহী মেডিকেল কলেজ মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ।

নেতা-কর্মীদের সতর্ক করে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘যারা অপকর্ম করে জনগণের কাছে অপছন্দের ও অগ্রহণযোগ্য, তাদের দল থেকে বের করে দিন। দল ভারী করার জন্য অপকর্মকারী কাউকে দলে টানবেন না। খারাপ লোক বাদ দিতে হবে, ভালো লোকদের সদস্য করতে হবে।’ এর সঙ্গে যোগ করেন, ‘উন্নয়ন যতই হোক, আচরণ খারাপ হলে উন্নয়ন ম্লান হয়ে যাবে। আচরণে যারা খারাপ আছেন, দয়া করে সংশোধন করুন।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী। আমাদের এবার প্রথম টার্গেট হচ্ছে নারী ভোটার। এরপর টার্গেট হচ্ছে প্রথমবারের মতো যারা ভোটার, মানে তরুণ ভোটার, এই দুই ক্যাটাগরির ভোটারদের ফোকাস করে সদস্য সংগ্রহ অভিযান চালাতে হবে।’

তিনি বলেন, রাজশাহীর যারা সৎ মানুষ, ভালো মানুষ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী, গণতন্ত্রে বিশ্বাসী, বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসেন, তাদের আপনারা সদস্য করবেন। চিহ্নিত কোনো চাঁদাবাজ আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না। দাগি কোনো অপরাধী, চিহ্নিত কোনো সন্ত্রাসী, অস্ত্রবাজ আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না। চিহ্নিত কোনো ভূমিদস্যু, চিহ্নিত স্বাধীনতাবিরোধী কোনো অপশক্তি আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না। এটা নেত্রীর নির্দেশ, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশ। এই নির্দেশনা আপনারা ফলো করবেন। আওয়ামী লীগ ভোটের জন্য নয়, আগামী প্রজন্মের জন্য রাজনীতি করে বলেও নেতাদের স্মরণ করিয়ে দেন তিনি।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল হোসেন, আমিনুল আলম মিলন, মেরিনা জাহান কবিতা, পারভীন জামান কল্পনা, জাহাঙ্গীর কবির রানা প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান, যুগ্ম সম্পাদক লায়েব উদ্দিন ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার। নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরীর সদস্যপদ নবায়নের মধ্যে দিয়ে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

জাতির পিতার ভাষণের স্বীকৃতি উদযাপন করবে বাংলাদেশ আওয়ামী লিগ।

বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণকে ইউনেসকো ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাত দিনব্যাপী কর্মসূচি নিয়েছে। আজ বুধবার আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলীর এক সভায় এই কর্মসূচি নেওয়া হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সম্প্রচার, আনন্দ শোভাযাত্রা, সভা-সেমিনার ও বিশেষ প্রার্থনা।

আজকের সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগের ঘোষিত কর্মসূচি অনুসারে শুক্রবার ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু বাড়ীতে জমায়েত এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। শনিবার দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণ সম্প্রচার ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শোভাযাত্রা। রোববার সারা দেশের মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডায় বিশেষ দোয়া। সোমবার রাজধানী ঢাকা ছাড়া সারা দেশে আনন্দ শোভাযাত্রা। মঙ্গলবার দেশব্যাপী আলোচনা সভা ও সেমিনারের আয়োজন, বুধবার দেশব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

শেষ দিন অর্থাৎ ৯ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটায় বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সাতই মার্চ ভাষণের স্মৃতিবিজড়িত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নাগরিক সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের প্রতিটি মহানগর, জেলা, উপজেলা, থানা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা-কর্মীদের এসব কর্মসূচি সফলভাবে পালনের জন্য জানিয়েছেন। তবে আজও দেশের বেশিরভাগ জায়গায় বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সম্প্রচার করতে শুনা জায় ।